আজ ১৩ নভেম্বর,রোববার নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন

আজ ১৩ নভেম্বর,রোববার নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন

11/13/2022
আজ হুমায়ূন আহমেদের ৭৪ তম জম্মবার্ষিকি
admin admin

 

বোরহান উদ্দীন নিয়াজ(রাউজান নিউজ) : আজ ১৩ নভেম্বর,রোববার নন্দিত কথাসাহিত্যিক হ‌ুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন। বাংলা সাহিত্যের এই কিংবদন্তি ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলার কুতুবপুর গ্রামে জন্ম গ্রহন করেন।

বাংলাদেশের তুমুল জনপ্রিয় কথাশিল্পী ও চলচ্চিত্রকার হুমায়ূন আহমেদ বেঁচে থাকলে আজ পা দিতেন ৭৪ বছরে। ১০ বছরের চেয়েও বেশি সময় পার হয়ে গেছে তার মৃত্যুর। কিন্তু কে বলবে তিনি নেই? তার লেখাতেই আজও মাতোয়ারা পাঠক। গল্প, উপন্যাস, কবিতা ছাড়াও হুমায়ূনের পদচারণে ছিল নাটক-গান ও সিনেমা। শিল্প-সাহিত্যের সব অঙ্গনেই তরুণদের কাছে তিনি অনুকরণীয়।

সহজেই পাঠকের হৃদয় স্পর্শ করে হ‌ুমায়ূন আহমেদের বহুমাত্রিক রচনা। বাঙালি মধ্যবিত্ত জীবনের সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্নার গল্প সহজ-সাবলীল ও হৃদয়গ্রাহী ভাষায় উঠে এসেছে তার লেখনীতে।

ব্যক্তি মানুষের আনন্দ-বেদনা, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, আবেগ-অভিমান, মনস্তাত্ত্বিক জটিলতা আর সমাজের প্রেক্ষাপটে মানুষের জীবনের বহুমাত্রিক অনুষঙ্গ অসাধারণ নৈপুণ্যে প্রতিভাত তার সৃষ্টিতে।

হুমায়ূনের রচনার অন্যতম বৈশিষ্ট্য চরিত্র নির্মাণ। তার সৃষ্ট চরিত্রগুলো যেন বার বার ফিরে আসে পাঠক মনে। হিমু, মিসির আলী, শুভ্ররা যেন পাঠকের অনেক কাছের।

হুমায়ূনের গল্প, উপন্যাসের বিভিন্ন ছোট ছোট উক্তি পাঠকের কাছে খুবই জনপ্রিয়। যেমন- বাদশাহ নামদারে লিখেছেন, ‘রাজা যায়, রাজা আসে। প্রজাও যায়, নতুন প্রজা আসে। কিছুই টিকে থাকে না। ক্ষুধার্ত সময় সব কিছু গিলে ফেলে, তবে গল্প গিলতে পারে না। গল্প থেকে যায়।

সাহিত্য ও চলচ্চিত্রে অনেক পুরস্কার পেয়েছেন হুমায়ূন আহমেদ। ১৯৮১ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পান তিনি। ১৯৯৪ সালে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ পান ‘একুশে পদক’।

আর চলচ্চিত্রে ১৯৯২ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। কাহিনীকার, সংলাপ রচয়িতা, চিত্রনাট্যকার ও শ্রেষ্ঠ পরিচালক হিসেবে তিনি মর্যাদাপূর্ণ এই পুরস্কার পেয়েছেন।

বাংলাদেশের তুমুল জনপ্রিয় এই কথাশিল্পী ও চলচ্চিত্রকার ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে ২০১২ সালের ১৯ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।





LEAVE A COMMENT

সোশাল মিডিয়া

ক্যালেন্ডার