রাউজান নিউজ

রাউজানের করোনা জয়ী এক সাহসী যোদ্ধা মোহাম্মদ আসিফ

মীর আসলাম(রাউজাননিউজ) :
মোহাম্মদ আসিফ রাউজান পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি গত মাসের পথম দিকে আক্রান্ত হয়েছিলেন করোনা ভাইরাসে। তার শরীরে বাসা বাঁধতে ছিয়েছিল নিজের অজান্তে প্রাণঘাতি ভাইরাসটি। টের পাওয়ামাত্র নিজের বুদ্ধিমত্তার গুনে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে চলায় ভাইরাসটিকে পরাজিত করে জয়ী হয়েছেন করোনা যুদ্ধে।
যুদ্ধ জয়ের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে এই সাহসী যোদ্ধা বলেন–
করোনা ভাইরাস যখন থেকে শক্তিশালী হতে শুরু করে,তখন থেকে আমরা এই ভাইরাসটির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মাঠে ছিলাম রাউজানের এমপি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী ও তার জ্যৈষ্ঠ পুত্র ফারাজ করিম চৌধুরীর নেতৃত্বে। আমাদের টিম লিডার ছিলেন করোনা যুদ্ধের এই সময়কালে লড়াকু সেনাপতি উপজেলা যুবলীগের সভাপতি পৌরসভার দ্বিতীয় প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ। তার সাথে আমরা যুবলীগ,ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা দল বেঁধে যেতাম পাড়ায় মহল্লায়, রাস্তাঘাটে,হাটবাজারে ভাইরাসের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্য লিপলেট,মাস্ক,হ্যাণ্ড সেনিটাইজারসহ প্রতিরক্ষামূলক বিভিন্ন সামগ্রী নিয়ে। করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের ঘরে ঘরে যেতাম আমাদের রাজনৈতিক অভিভাবক সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর সাথে ত্রান নিয়ে। এভাবে অতিবাহিত হচ্ছিল দিন। ত্রাণ বিতরণ কাজ চলছিল রাত দিন সমান তালে।
এভাবে চলার পথে আমি পারভেজ ভাইয়ের সাথে একদিন ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে ছিল পৌরসভার নয় নাম্বার ওয়ার্ডে। এই কার্যক্রমের ছিলেন যুবলীগ নেতা সুমন দে। সারা দিনের ক্লান্ত শরীরে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে পড়া সুমন দা’র কাছে দেখছিলাম লিডার যুবলীগ নেতা পারভেজ ভাইয়ের ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম। হঠাৎ করে অনুভব করলাম আমার শরীর মেজমেজ করছে। বিষয়টি সেয়ার করলাম সুমন দা’র সাথে। তিনি আমাকে পরামর্শ দিলেন ঘরে গিয়ে বিশ্রাম নিতে। তার পরামর্শে ঘরে চলে গেলাম টিম লিডার পারভেজ ভাইকে না জানিয়ে। ঘরে পৌঁছতেই আমার শরীরে তাপমাত্রা বেড়ে যায়। গায়ে আসে জ্বর, রাতে এর তীব্রতার বাড়ে। সাথে শুরু হয় কাঁশি। চিন্তিত মনে ফোন দিলাম লিডার পারভেজ ভাইকে। আমার কথা শুনে তিনিও চিন্তিত হলেন। পরামর্শ দিলে টেস্ট করাতে। লিডারের পরামর্শে গেলাম রাউজান উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে।
সেখানে গিয়ে প্রথমে সহজ ভাবে টেস্ট করাতে পারলাম না। মেঝাজ অনেকটা রুক্ষ হয়ে পড়ে এই হাসপাতালের দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গের আচরণ দেখে। ফোন দিলাম পারভেজ ভাইকে। তিনি কথা বললেন সংশ্লিষ্টদের সাথে। তারপরও তাদের ডিলেঢালা ভাব দেখে ফোন দিলাম আমাদের রাজনীতির অভিভাবক এমপি মহোদয়কে। তিনি আমার কথা শুনে রেগে সংশ্লিষ্টদের নিদেশ দিলেন দ্রুততার সাথে আমার টেস্ট করাতে। এবার কিছুটা স্বস্তি আসে। কিন্তু শরীরের তাপমাত্রা কাশি বেড়েই চলছিল প্রতি মুহুত্বে। কিছু ঔষধসহ কাতর শরীর নিয়ে গেলাম বাসা। আমার অবস্থা দেখে পরিবারের সকলেই ছিল উদ্বিগ্ন। জ্বর কাশি বেড়ে যাওয়ায় ডাক্তারের পরামর্শ নিচ্ছিলাম ঘন ঘন। ফোনে যোগাযোগ অব্যাহত ছিল পারভেজ ভাইয়ের সাথে। এক বড় ভাইয়ের পরামর্শে অস্থিরতার মধ্যে কিছু ঔষধও খেলাম পরিত্রাণের আশায়। দিন দিন যেন আমার শরীর নিঃতেজ হয়ে যাচ্ছিল। মনে মনে ভাবছিলাম করোনার কাছে আমি হয়ত পরাজিত হতে চলছি। পারভেজ ভাইকে বললাম আমার যন্ত্রনার কথা। তিনি আমার শাররীক অবস্থার কথা শেয়ার করলেন অভিভাবক এমপি মহোদয়ের সাথে। সিদ্ধান্ত এলো দ্রুত হাসপাতালে নেয়ার। তখন ছিল হাসপাতাল গুলোতে চিকিৎসা সংকট। এমন পরিস্থিতিতে আমাকে নেয়া হলো ম্যাক্স হাসপাতালে। সেখানে যাওয়া যাচ্ছিল না আমাকে রেখে চিকিৎসা দেয়ার মত সিট। আবার শুরু হলো আমার জন্য পারভেজ এর তদবির ।
এমপি মহোদয় ফোন করলেন ওই হাসপাতালের একজন পরিচালককে। অনুরোধ করলেন যেকোনো মূল্যে আমার চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে। তখন আমার অবস্থা ছিল সংকটাপন্ন। শুরু হলো চিকিৎসা। অনেকটা নিঃতেজ শরীরে কখন কি ঔষধ প্রয়োগ হচ্ছিল তার বুঝার জ্ঞান ছিল না। রাউজানের আমার রাজনীতির বন্ধু,আত্মীয় স্বজন, এলাকার মানুষ আমার জন্য আল্লাহ’র দরবারে দোয়া করেছে। মহান সৃষ্টিকর্তা সেই দোয়া কবুল করায় আমি প্রায় একমাস করোনার সাথে লড়াই করে বেঁচে উঁঠেছি। পরাজিত করেছি করোনাকে। তবে আমার শরীরের দুর্বলতা কাঠতে সময় লেগেছে অনেক দিন। বর্তমানে আমি আবারো পারভেজ ভাইয়ের সাথে করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করতে নেমেছি। সকলেইর দোয়া চাই। আমার অভিজ্ঞতার আলোকে সকলের উদ্দেশ্যে বলি ভয় নয় মনে সাহস রাখুন। আপনি পারবেন করুনাকে পরাস্ত করতে। আল্লাহ সহায়।# মোহাম্মদ আসিফ।

Mir Islam

Add comment

Follow us

Don't be shy, get in touch. We love meeting interesting people and making new friends.

নামাজের সময়সূচী

    চট্রগ্রাম
    Monday, 21st September, 2020
    SalatTime
    Fajr4:31 AM
    Sunrise5:47 AM
    Zuhr11:51 AM
    Asr3:17 PM
    Magrib5:56 PM
    Isha7:11 PM

এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি এর উদ্যোগ সমগ্র রাউজানে ৪ লক্ষ ৫০ হাজার ফলজ চারা রোপন কর্মসূচী

ভয়াবহ আগুন থেকে রক্ষা পেল রাউজানে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে

Most popular

Social Media