রাউজানের ঈদ বাজার ঃ শেষ সময়ে ঠাসা ভিড়

106
মীর আসলাম.রাউজান.
রোজার শেষ পর্যায়ে এসে এখন মানুষ ব্যস্ত হয়ে পড়েছে ঈদের কেনাকাটায়। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে পছন্দের পোষাক আষাক কিনতে তারা ছুটছেন এক মার্কেট থেকে অন্য মার্কেটে। অধিকাংশ ক্রেতার অভিযোগ আছে দোকানীরা পোষাক আষাকের দাম হাকাচ্ছে আকাশ চুম্বি। দরদাম ঠিক করতে সময় ক্ষেপন করলেও আগের চাওয়া দামের অনেক নিচে নেমে পন্য হাতে দিচ্ছে ক্রেতাদের। রাউজানের উত্তর -দক্ষিণ অঞ্চলের মার্কেট সমূহ ঘুরে দেখা যায় আগে থেকে দোকানীরা সকল শ্রেণির ক্রেতার চাহিদা বিবেচনায় ঈদের পন্য দোকানে সাজিয়েছেন।

এর আগে মাঝারি ধরণের কেনাকাটা হলেও এখন বিক্রেতারগণ দম ফেলার ফুরসোত পাচ্ছেন না ক্রেতার ভিড়ে। এই উপজেলার উত্তারাংশের ফকিরহাট,গহিরা চৌমুহনী, দক্ষিণের নোয়াপাড়া পথেরহাট,পাহাড়তলী চৌমুহনীর মার্কেট গুলোতে দেখা গেছে রাত দুপুর পর্যন্ত নারী শিশুদের নিয়ে অভিভাবকরা কেনাকেটা করছে। স্থানীয়রা জানিয়েছে আইন শৃংঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল থাকায় উপজেলার বিভিন্ন স্থানের মানুষ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে গভীর রাত পর্যন্ত মার্কেট সমূহে যাওয়া আসা করছে। উপজেলার অন্যতম বানিজ্য কেন্দ্র নোয়াপাড়া পথেরহাট বাজারে রয়েছে প্রায় এক হাজার ছোট বড় দোকান। এখানকার চারটি আধুনিক মার্কেট এর মধ্যে রয়েছে দেশি বিদেশি বিভিন্ন শ্রেণির পণ্যে ব্যবসা।

এই বাজারের ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি সৈয়দ জাফর আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন দুজনেই বলেছেন এখানে নিরাপত্তার কোনো ঘাততি নেই। প্রশাসনের পাশাপাশি নিজেদের নিরাপত্তা গার্ডরা সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছেন। প্রায় প্রতিটি মার্কেট ও গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাঘাট রয়েছে সিসি ক্যামরার আওতায়। পথেরহাটের ঠাসা ভিড় দেখা গেছে ভারতশ্বরী প্লাজার আলো শাড়ীজ, শাহ আমানত ক্লথ ষ্টোর, সাদিয়া এন্টারপ্রাইজ, রূপনগর, গাউসিয়া ক্লথ,আমীর মার্কেটে গিফট এ- ফ্যাশন, আল মক্কা,খায়েজ শপিং কমপ্লেক্স এর দ্বিতীয় তলায় লাইফ ষ্টাইলে দেখা গেছে টিনএজ যুবকদের ভিড়। এই দোকানে দেশি বিদেশি পাঞ্জাবী,সার্ট, প্যান্টের রয়েছে বিপুল সমাহার।
এছাড়া এই মার্কেটে নারীদের ভিড় দেখা গেছে রূপসা ফ্যাশন, মাতৃছায়া, এ এম ফ্যাশন, মায়াবী ফ্যাশনসহ আরো বেশ কিছু দোকানে। ঈদের বাজার নিয়ে কথা বললে নোয়াপাড়া ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান ও বাজার কমিটির উপদেষ্টা বাবুল মিয়া মেম্বার বলেছেন রাউজান এখন শান্তি সম্প্রীতির জনপদ। সন্ত্রাসী,চাঁদাবাজরা বিতাড়িত করা হয়েছে প্রায় দুই দশক আগে। রাউজানের সর্বস্তরের মানুষ এখন অপরাধীদের বিরুদ্ধে এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ রয়েছে। ঈদ বাজারের শৃংঙ্খলা রক্ষায় ভিন্ন টিমে বিভক্ত হয়ে কাজ করছেন কমিটির সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের সাথে কমিটির কর্মকর্তা আবু বক্কর সওদাগড়,শফিকুল ইসলাম মনু,কামাল উদ্দিন, আহমদ সৈয়দ,বশির উদ্দিনসহ বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী নেতা। তাদের নিরাপত্তা বলয়ে এখন রাত দুই- তিনটায়ও নোয়াপাড়ার ঈদের বাজারে নারী পুরুষদের ঢল দেখা যাচ্ছে।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here