ফরিদপুরে চায়ের দোকানে রাজনৈতিক আলাপকে কেন্দ্র করে নৌকার কর্মীদের ওপর হামলা, নিহত ১

193

স্টাফ রিপোর্টার ♦

ফরিদপুরে চায়ের দোকানে রাজনৈতিক আলাপকে কেন্দ্র করে নৌকার কর্মীদের ওপর হামলা, নিহত ১। চায়ের দোকানে রাজনৈতিক আলাপকে কেন্দ্র করে ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনে আওয়ামী লীগের কর্মীকে পিটিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

গতকাল মঙ্গবার রাত সাড়ে আটটার দিকে সদর উপজেলার নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের গোয়ালডাঙ্গি গ্রামে একটি চায়ের দোকানে খুন হন আওয়ামী লীগ নেতা ইউসুফ আল মামুন।

জানা গেছে, নিহত মামুন আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশররাফ হোসেনের কর্মী ছিলেন। মামুন নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন। এ ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে আছেন আরো একজন আওয়ামী লীগ নেতা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সন্ধ্যার পর চায়ের দোকানে বসে রাজনৈতিক আলাপ আলোচনা করছিলেন বিএনপির নেতা-কর্মীরা। সেখানে উপস্থিত ছিলেন ইউসুফ আল মামুন। একপর্যায়ে বিএনপির সমর্থকরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ কথা বলতে থাকেন। এর প্রতিবাদ করেন মামুন। বাধে তর্ক। একপর্যায়ে মামুনের উপর চড়াও হন বিএনপির সমর্থকরা। ক্রমাগত পেটানো হয় তাকে। তাকে বাঁচাতে গিয়ে আহত হন স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি লালন ফকিরও।

জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন মৃধা বলেছেন, ‘এই হামলার মধ্য দিয়ে শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের পরিবেশকে বিএনপি অশান্ত করার চেষ্টা করেছে।

ঘটনাটি শোনার সঙ্গে সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা ছুটে যান হাসপাতালে। সেখানে ইউসুফের মরদেহ এবং আহত লালনকে দেখে তারা মর্মাহত হন। সেই সঙ্গে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

বিএনপি সমর্থিত নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোশতাকুজ্জামান স্বীকার করেছেন, ঘটনাটি তার দলের সমর্থকরা ঘটিয়েছে। তিনি বলেন, ইউসুফের সঙ্গে মজিদ নামে একজনর চা খাচ্ছিলেন। তিনি বিএনপির সমর্থক, তবে কোনো পদে নেই। সে একপর্যায়ে শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটূক্তি করে। ইউসুফ ঘটনার প্রতিবাদ করলে দু’জনের মধ্যে হাতাহাতি ও ধস্তাধস্তি শুরু হয়।

ফরিদপুর কোতয়ালী থাকার পরিদর্শক (তদন্ত) বিপুল চন্দ্র দেব বলেন, ‘আমরা ঘটনা শুনেছি। এলাকায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জামাল পাশা বলেন, ঘটনা শোনার সঙ্গে সঙ্গে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ এলাকায় ফোর্স পাঠানো হয়েছে। তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। আমরা পরিস্থিতি খুবই গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি।

এ ঘটনা শোনার পর খন্দকার মোশাররফ হোসেন তার সমর্থকদের শান্ত থাকার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here