ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের লক্ষে বাইসাইকেল চালিয়ে স্কুলে রাউজানের মেহেরুন নেছা

1369

অামির হামজা (রাউজান নিউজ) ♦

ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের লক্ষে বাইসাইকেল চালিয়ে স্কুলে রাউজানের মেহেরুন নেছা”

নাম মেহেরুন নেছা (১৩)। সে চট্টগ্রামের রাউজান ছালামত উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী। নিয়মিত বাই-সাইকেল চালিয়ে স্কুলে আসা-যাওয়া করে। মেহেরুন নেছা ইচ্ছে পড়ালেখা করে দেশের একজন বড় ডাক্তার হবে। তার মা ইচ্ছে তার মেয়ে একজন বড় ডাক্তার হবে একদিন, দেশের মানুষের সেবা করবে। ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী মেহেরুন নেছা রাউজান উপজেলার ডাবুয়া ইউনিয়নের উত্তর হিংগলা এলাকার মৃত আবুল কালামের তৃতীয় কন্যা।

বছর খানেক আগে বাবা মারা গেলেও পড়া লেখা থেকে কোনো মেয়েকে বিরত রাখেননি মেহেরুনের মা। কষ্টের সংসারে তিনি চার মেয়েকেই পড়াচ্ছেন স্কুল কলেজে। মেহেরুনের বড় বোন রিমা আকতার এখন অনার্সের ছাত্রী, মেঝবোন শিমু এবার এস.এস.সি পরীক্ষা দিয়েছে, আর ছোট নাসরিন সুলতানা পড়ছে তৃতীয় শ্রেণীতে। ছালামত উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্বপন কুমার বনিক বলেছেন মেহেরুন তার স্কুলের ভাল ছাত্রী। নিয়মিত সাইকেল চালিয়ে আসে স্কুলে।

জানা যায়, মেয়েরা সাইকেল চালিয়ে গ্রামীণ স্কুলে যাওয়া আসার দৃশ্য কম দেখা গেলেও, প্রথম প্রথম সাইকেল নিয়ে স্কুলে আসা যাওয়া দেখে অনেকেই মেহেরুনকে কৌতুহলী হয়ে দেখতো। শিক্ষার্থীরা এই নিয়ে হাসাহাসি করলেও এখন মেহেরুনের সাইকেল নিয়ে কারো কৌতুহল নেই। স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা বলেছেন মেহেরুনের মাঝে তিনি অধ্যবসায় দেখেন, তার চোখে মুখে এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখেন। তিনি জানান স্কুলের কিছু কিছু শিক্ষার্থীর আচার আচরণে ফুটে উঠে তারা স্বপ্ন জয় করবে। স্কুল কর্তৃপক্ষও তাদের প্রতি বিশেষ নজর রেখে এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা জোগায়।

ক্ষুদে শিক্ষার্থী মেহেরুন এর সাথে কথা বললে সে তার স্বপ্নের কথা জানিয়ে বলে আমার-বাবা আমাকে ডাক্তার বলে ডাকত। মার ইচ্ছে আমাকে দিয়ে বাবার স্বপ্ন পূরণ করার। আমার ইচ্ছে পড়ালেখা করে ডাক্তার হবো। সাইকেল প্রসঙ্গে মেহেরুন বলে আমার স্কুল থেকে বাড়ী প্রায় দেড় কিলোমিটার। স্কুলে আসা যাওয়ার সুবিধায় আমাকে আমার এক খালাতো বোন সাইকেলটি কিনে দিয়েছে। এখন এই সাইকেল নিয়ে প্রতিদিন স্কুলে যাওয়া আসা করি।

রাউজান নিউজ/মীর অাসলাম/কামরুল ইসলাম বাবু/অামির হামজা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here