চট্টগ্রামে এসএসসিতে সেরা ১০ স্কুল

430

চট্টগ্রামে এসএসসিতে সেরা ১০ স্কুল

সুমন (নগর প্রতিনিধি) :

২০২০ সালের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের অধীনে ১ হাজার ৪৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শতভাগ শিক্ষার্থী পাস করে সেরার তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে নাছিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। তবে জিপিএ-৫ এর দিকে সেরা তালিকায় নিজেদের আসন অক্ষুন্ন রেখেছে কলেজিয়েট স্কুলের শিক্ষার্থীরা।

রোববার (৩১ মে) প্রকাশিত ফলাফল বিশ্লেষণে এসব তথ্য জানা যায়।

ফলাফল পর্যালোচনা করে দেখা যায়, শতভাগ পাস নিশ্চিত করে সেরা দশের তালিকায় চট্টগ্রামের যেসব স্কুল রয়েছে, তাদের মধ্যে প্রথম স্থানে নাছিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। তাদের মোট ৪৬৭ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩০৩ জন।

বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৪৬২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে, শতভাগ পাস করে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৮৪ জন।

সরকারি মুসলিম হাই স্কুল থেকে ৪৪২ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে শতভাগ পাস করে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৫৪ জন।

ডা. খাস্তগীর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবারের পরীক্ষায় অংশ নেয় ৩৪০ জন পরীক্ষার্থী। শতভাগ পাস নিশ্চিত করে সেরার তালিকায় চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৮৫ জন।

সেন্ট প্লাসিডস উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২১৭ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। শতভাগ পরীক্ষার্থী পাস করে সেরা পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে এ স্কুলটি। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১০৫ জন।

চিটাগাং ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক কলেজের ২১০ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয় এবারে পরীক্ষায়। শতভাগ নিশ্চিত করে তারা রয়েছে ষষ্ঠ অবস্থানে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৫৪ জন।

ক্যান্টনমেন্ট ইংলিশ স্কুল এন্ড কলেজের ১৮৩ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয় পরীক্ষায়। শতভাগ নিশ্চিত করে তারা রয়েছে সপ্তম অবস্থানে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৫৬ জন পরীক্ষার্থী।

এদিকে, মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জ বৌদ্ধ উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৮০ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। শতভাগ পাশ করে সেরা তালিকায় অষ্টম অবস্থানে এসেছে উপজেলার এই স্কুলটি। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮৭ জন পরীক্ষার্থী।

সিটি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৭৪ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে শতভাগ পাস করে তারা রয়েছে নবমস্থানে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১০৯ জন পরীক্ষার্থী।

সেরা দশম তালিকায় রয়েছে সিলভার বেলস গার্লস হাই স্কুল। তাদের ১৬৬ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। শতভাগ পাস করে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১২১ জন পরীক্ষার্থী।

চট্টগ্রামে  জিপিএ-৫ পাওয়ার ভিত্তিতে সেরা ১০ স্কুল

চট্টগ্রামে ১ হাজার ৪৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে জিপিএ-৫ এর দিক থেকে সেরা দশের তালিকায় রয়েছে চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল।

কলেজিয়েট স্কুল থেকে ৪৭০ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে অকৃতকার্য হয়েছে একজন শিক্ষার্থী। যার কারণে শতভাগ পাসের তালিকা থেকে সরে যায় কলেজিয়েট স্কুল। তবে সর্বোচ্চ জিপিএ-৫ পেয়ে এবং ৯৯ দশমিক ৭৯ শতাংশ শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়। এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৩৮ জন পরীক্ষার্থী।

সরকারি মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয় ৪৪২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৫৪ জন। সেরা তালিকায় এ স্কুল রয়েছে দ্বিতীয় অবস্থানে।

তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। তাদের ৪৬৭ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে শতভাগ পাস করে ৩০৩ জন পেয়েছে জিপিএ-৫ শিক্ষার্থী।

ডাক্তার খাস্তগীর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩৪০ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে ২৮৫ জন পেয়েছে জিপিএ-৫। শতভাগ পাস এবং জিপিএ-৫ এর দিকে এ স্কুল রয়েছে চতুর্থ অবস্থানে।

বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪৬২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ ৫ পেয়েছে ২৮৪ জন। শতভাগ পাস করে জিপিএ-৫ এর দিকে এ স্কুল রয়েছে পঞ্চম অবস্থানে।

নৌবাহিনী স্কুল এন্ড কলেজের ৫১৯ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে পাস করেছে ৫১৭ জন। ৯৯ দশমিক ৬১ শতাংশ শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৫২ জন। তারা রয়েছে সেরা তালিকার ষষ্ঠ অবস্থানে।

চট্টগ্রাম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ২৮৬ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে কৃতকার্য হয়েছে ২৮৪ জন। যা ৯৯ দশমিক ৩০ শতাংশ পরীক্ষার্থী কৃতকার্য হয়ে ২০৪ জন পরীক্ষার্থী পেয়েছে জিপিএ-৫। সেরা তালিকায় এ স্কুলের অবস্থান সপ্তম।

চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩৪৫ পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ৩৩৯ জন। ৯৮ দশমিক ২৬ শতাংশ কৃতকার্য হয়ে জিপিএ-৫ এর তালিকায় তারা রয়েছে অষ্টম অবস্থানে। এ স্কুলের ১৭৩ জন পরীক্ষার্থী পেয়েছে জিপিএ-৫।

বাকলিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩৮২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে পাস করেছে ৩৮০ জন। ৯৯ দশমিক ৪৮ শতাংশ পরীক্ষার্থী কৃতকার্য হয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৬৬ জন। সেরা তালিকায় তারা রয়েছে নবম অবস্থানে।

জিপিএ-৫ এর দিকে সেরা দশের তালিকায় রয়েছে ক্যান্টনমেন্ট ইংলিশ স্কুল এন্ড কলেজ। তাদের ১৮৩ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। শতভাগ পাশ করে জিপিএ-৫ পেয়েছে এই স্কুলের ১৫৬ জন পরীক্ষার্থী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here