করোনা ভাইরাস এবং বিভিন্ন মুসলিম দেশগুলোতে মসজিদেনিয়মিত নামাজ ও জুমার নামাজ বাতিল প্রসঙ্গে

158

রানা কিবরিয়া.জার্মান থেকে: করোনা ভাইরাসের কারণে সৌদি আরব সহ বিভিন্ন মুসলিমপ্রধান দেশগুলোতে পাঁচ ওয়াক্ত ও জুমার নামাজ আপাতত বন্ধরাখা হয়েছে যাতে সাধারণ জনগণের মাঝে এই মহামারীছড়িয়ে না পরে। এমনকি জার্মানীতেও মসজিদগুলো আপাততবন্ধ রাখা হয়েছে।

ফেসবুকে অনেক পোষ্ট দেখলাম যেখানেঅনেক মুসলিম ভাই/বোন অনেক বিরূপ মন্তব্য করছেন।তাদের উদ্দেশ্যে হাদীসের আলোকে এরকম পদক্ষেপেরযথার্থতা তুলে ধরার চেষ্টা করব।

আবু সালামাহ হতে বর্ণিত, আল্লাহ্‌র রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়াসাল্লাম) বলেছেন, ‘’কোন সংক্রমণ নেই (আল্লাহ্‌র নির্দেশব্যতীত)। তোমরা সুস্থদেরকে অসুস্থদের সাথে মেশাবে না।‘’(সহীহ মুসলিম ৪১২৪)।

সা’দ থেকে বর্ণিত, আল্লাহ্‌র নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়াসাল্লাম) বলেছেন, ‘’তোমরা যদি কোন এলাকায় বা দেশেমহামারীর খবর শোন ,তাহলে ওখানে প্রবেশ করবে না। আরতোমরা যেখানে থাক সেখানেই যদি ঘটে, তাহলে সেখান থেকেবের হবে না।‘’ (সহীহ আল-বুখারী ৫৩৯৬, সহীহ মুসলিম২২১৮)।

উপরোক্ত হাদীসগুলো থেকে বুঝা যায়, কোন সংক্রমণ বামহামারী থেকে একটি জাতীকে বাঁচানোর জন্য পৃথকীকরণপ্রক্রিয়া (যেটাকে আমরা বর্তমানে কোয়ারেন্টিন বলি) বা জনসমাগম থেকে আলাদা থাকা ইসলামে আগে থেকেই বলাহয়েছে।

সুতরাং আমাদের উচিত হবে ফেসবুকে কোন বিভ্রান্তিকর পোষ্টনা করে নিজ নিজ জায়গা থেকে একে অপরের জন্য দোয়াকরা। বর্তমানে এরকম ভয়াবহ পরিস্থিতিতে বাসায় বসে নামাজপরলেও নামাজ হবে। আপনার দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজআদায় করাটাই মুখ্য, সেইটা মসজিদে হোক বা বাসায়। পবিত্রহাদীসেই পুরো পৃথিবীটাকে নামাজের স্থান হিসেবে উল্লেখ করাহয়েছে।

আবু সাইদ আল-খুদরী বর্ণনা করেছেন: রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহুআলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেন, “কবরস্থান এবং বাথরুমব্যতীত সমগ্র পৃথিবীকে নামাজের স্থান করা হয়েছে।” (সুনানআল-তিরমিযী ৩১৭)

বার্তা সম্পাদক.আমির হামজা  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here